মিডিয়াজগত এ বছর যাদের সংসার ভেঙে গেছে।

মিডিয়া জগতের মানুষের একদমই বিয়ে টেকে না এই কথাটা সবসময়ের জন্য প্রচলিত। কিন্তু মিডিয়া জগতের মানুষ গুলো এই বিষয়টিকে একদমই মেনে নিতে চান না। তারপরেও প্রতিবছর মিডিয়াপাড়ায় বিচ্ছেদের ঘটনা অহরহ ঘটে চলেছে। করোনার কারণে 2020 সাল এমনিতেই অভিশপ্ত ছিল। আর এই অভিশপ্ত সালেও বেশ কয়েকটি বিচ্ছেদের ঘটনা ঘটেছে মিডিয়াপাড়ায় সেগুলো হলোঃ

তমা মির্জা- হিসাম চিশতী


তমা মির্জা বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কানাডীয় ব্যবসায়ী হিশাম চিশতি এর সাথে ২০১৯ সালের বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। বিয়ের মাত্র দেড় বছর না গড়াতেই তমা মির্জা এবং হিশাম চিশতি আলাদা থাকা শুরু করেন। তমা মির্জা এবং হিশাম চিশতি একে অপরের বিরুদ্ধে মামলাও করেন। আর সেই মামলায় হিশাম চিশতি উল্লেখ করেছেন যে তমা মির্জার থেকে পাওনা টাকা চাওয়ায় তমা মির্জা এবং  তার পরিবার মিলে  তাকে হত্যার চেষ্টা করেন। অন্যদিকে তমা মির্জা যৌতুক এবং নির্যাতন নিয়ে স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করেন। করেন আর এর পরপরই তমা মির্জা ঘোষণা করেন যে তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে হিশাম চিশতি ডিভোর্স দিচ্ছেন।

শবনম ফারিয়া- হারুন অর রশিদ অপু


এ বছরের সবথেকে আলোচিত বিচ্ছেদ হলো শবনম ফারিয়া এবং হারুন-অর-রশিদ এর। ২০১৮ সালে ৩ বছর প্রেমের শেষে ফেব্রুয়ারীতে শবনম ফারিয়া এবং হারুন-অর-রশিদ অপু আংটি বদল করেন । জমকালো আয়োজনে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে সেরে ফেলেন এই অভিনেত্রী । কিন্তু সংসারটা আর বেশিদিন করা হলো না। ২৭ শে নভেম্বর ২০২০ সালের  ডিভোর্স পেপারে সই করেন    হিশাম চিশতি এবং ফারিয়া। ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে .২৮শে নভেম্বর এই বিষয়টি নিশ্চিত করেন শবনম ফারিয়া নিজেই।
আরো জানুন:

শাবনূর-অনিক। মিডিয়াপাড়া এ বছর যাদের সংসার ভেঙে গেছে
বাংলাদেশের জনপ্রিয় নায়িকা শাবনূর এবং অনিক ২০১১ সালের ৬ ডিসেম্বর আংটি বদল করেন। পরে তারা বিয়ের পিঁড়িতে বসেছিলেন ২০১২সালের ২৮ শে ডিসেম্বর। আর সে বছরই তাদের একটি পুত্র সন্তান জন্মগ্রহণ করেন। জনপ্রিয় নায়িকা শাবনূর এবং অনিক এর বনিবনা না হওয়ার কারণে ২৬ শে জানুয়ারি ২০২০ সালে তাঁদের সম্পর্কের ইতি টানেন তারা। চৌঠা ফেব্রুয়ারি জনপ্রিয় নায়িকা শাবনূর তালাকের নোটিশ তার স্বামী অনিক এর স্থানীয় ঠিকানায় পাঠিয়ে দেন। সেখানে উল্লেখ করেন অনিক এবং তার মধ্যে কোনো রকমের বনিবনা না হওয়ায়  তারা বিচ্ছেদ চান। বাংলাদেশের জনপ্রিয় নায়িকা শাবনূরের ডিভোর্স নিয়ে মিডিয়াপাড়ায় বহু আলোচনা এবং সমালোচনা চলতে থাকে।

অপূর্ব- নাজিয়া। মিডিয়াপাড়া এ বছর যাদের সংসার ভেঙে গেছে


কঠিন করো না পরিস্থিতির মধ্যেই নাটকের জনপ্রিয় তারকা অপূর্ব এবং নাজিয়ার বিচ্ছেদ হয়। নাজিয়া হাসান অদিতি সঙ্গে বিয়ের.৯ বছরের মাথায় অপূর্বর বিচ্ছেদ ঘটে।নাজিয়া হাসান অদিতি এবংজিয়াউল কবির অপূর্ব নিজেদের ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে বিচ্ছেদের খবর নিশ্চিত করেন। অপূর্ব এবং নাজিয়া 

হাসান অদিতি তারা দুজনে জানান যে বিচ্ছেদের জন্য কেউ দায়ী নন।

মিডিয়াপাড়া এ বছর যাদের সংসার ভেঙে গেছে। মিডিয়াপাড়া এ বছর যাদের সংসার ভেঙে গেছে

কিন্তু কী কারণের জন্য তাদের মধ্যে বিচ্ছেদ হয়েছে বা তারা সংসার জীবনের ইতি টেনেছেন সে বিষয়ে দুজনের কেউই মুখ খোলেননি। নাজিয়া হাসান অদিতি সঙ্গে জিয়াউল কবির  অপূর্বর ২০১১ সালের ২১ শে ডিসেম্বর বিবাহ হয়। তাদের ঘরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। নাম জায়ান ফারুক  আয়াশ। জিয়াউল কবির অপূর্বর এটা দ্বিতীয় বিয়ে ছিল। এর আগে তিনি অভিনেত্রী প্রভার সঙ্গে .২০১১ সালের ২১ ফেব্রুয়ারীতে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। জিয়াউল কবির অপূর্বর সেই বিয়েটা টেকেনি বিচ্ছেদ হয়ে গিয়েছিল।

মুনমুন-মোশাররফ হোসেন


একসময়ের হালের নায়িকা মুনমুনের বিচ্ছেদ হয় এ ২০২০ সালে। নায়িকা মুনমুন এবং মোশাররফ হোসেনের বিচ্ছেদ আগে হলেও সে খবর মিডিয়ার প্রচার হয় ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে। নায়িকা মুনমুন মোশারফ নামের এক অভিনেতাকে ২০০৯ সালে বিয়ে করেছিলেন। মুনমুন এবং মোশারফ হোসেনের দুটি সন্তান রয়েছে। একজনের নাম সালমান এবং অন্যজনের নাম যশ।  বিচ্ছেদ এর কারণ হিসেবে নায়িকা মুনমুন সবাইকে জানিয়েছেন যে তাদের দুই সন্তান ও স্বামীকে নিয়ে সংসাতাকে একাই চালাতে হচ্ছিল।
মিডিয়াপাড়া এ বছর যাদের সংসার ভেঙে গেছে। মিডিয়াপাড়া এ বছর যাদের সংসার ভেঙে গেছে। মিডিয়াপাড়া এ বছর যাদের সংসার ভেঙে গেছে। মিডিয়াপাড়া এ বছর যাদের সংসার ভেঙে গেছে

মুনমুন আরও জানান যে তিনি তার স্বামীকে অন্য ব্যবসা করার কথা বলছিলেন সিনেমায় লগ্নি করা বাদে। কিন্তু তার স্বামী মীর মোশারফ হোসেন তার সে কথা শোনেনি। সে পড়ে আছে সিনেমাপাড়া নি্যে। সংসারের কোনো দায়িত্বই মোশাররফ হোসেন নেন না । তাই বাধ্য হয়ে নায়িকা মুনমুন বিচ্ছেদের পথে হেঁটেছেন। তবে এটা নায়িকা মুনমুনের প্রথম বিয়ে ছিল না। এটা ছিল নায়িকা মুনমুনের দ্বিতীয় বিয়ে। তিনি সিলেটের এক ব্যবসায়ীকে .২০০৩ সালে প্রথমবার বিয়ে করেছিলেন বলে জানিয়েছেন।

পরীমনি-রনি। মিডিয়াপাড়া এ বছর যাদের সংসার ভেঙে গেছে

নায়িকা পরীমনি হুট করেই ২০২০ সালের ১০ মার্চ বিয়ে করে বসেন নাট্য নির্মাতা কামরুজ্জামান রনি কে । সেই সময়ে নায়িকা-পরীমনি আমাদেরকে জানিয়েছিলেন যে তিনি নাট্য নির্মাতা কামরুজ্জামান রনি কে মাত্র তিন টাকা দেনমোহরে বিয়ে করেছেন। কিন্তু আফসোসের বিষয় পরীমনির সেই তিনটা কার বিয়ে ফিলম আস টেকেনি। বিয়ের মাত্র কয়েক মাস পর থেকে পরীমনি এবং কামরুজ্জামান রনি আলাদা থাকা শুরু করেন। অবশেষে তাদের বিচ্ছেদের খবর প্রকাশ্যে আসে। যদিও এ বিষয় নিয়ে কামরুজ্জামান রনি সরাসরি কিছুই জানাননি। এর আগে .২০১৯ সালের ১৪ এপ্রিল সাংবাদিক তামিম হাসান এর সঙ্গে পরিমনির বাগদান সম্পন্ন হয়েছিল। কথা ছিল যে .১৪ এপ্রিল তারা বিয়ে করবেন। কিন্তু তাদের বিয়ে আর হয়ে ওঠেনি । বিয়ের আগেই আলাদা পথে চলতে থাকেন।মিডিয়াপাড়া এ বছর যাদের সংসার ভেঙে গেছে

0/Post a Comment/Comments