বোল্টকে ‘ভয়’ পেয়েছেন দেখেই রোহিত তিন নম্বরে?


বোল্টকে ‘ভয়’ পেয়েছেন দেখেই রোহিত তিন নম্বরে?

পাকিস্তানের বিপক্ষে ১০ উইকেটে নাস্তানাবুদ হওয়ার পর ভারতের একাদশে যে পরিবর্তন আসবে, সেটা মোটামুটি নিশ্চিত ছিল। হার্দিক পান্ডিয়ার জায়গায় অন্য কাউকে খেলানোর কথা চলছিল। কিন্তু তাই বলে নিজেদের পরীক্ষিত ওপেনার রোহিত শর্মাকে নিয়েও যে ভারতীয় ম্যানেজমেন্ট পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাবে, এটা হয়তো ঘুণাক্ষরেও বুঝতে পারেননি কেউ।

কিন্তু ভারত অমনটাই করেছে। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওপেনার রোহিত শর্মাকে খেলিয়েছে তিনে। লোকেশ রাহুলের ওপেনিং-সঙ্গী হয়েছেন আরেক উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান ঈশান কিষান। লাভের লাভ হয়নি কিছুই। ৮ বলে ৪ রান করে ট্রেন্ট বোল্টের শিকার হয়েছেন কিষান। ওদিকে রোহিত বশ হয়েছেন ইশ সোধির ঘূর্ণিজালে

কিন্তু হুট করে কেন রোহিতের এই ‘অবনমন’? কেন তাঁর পজিশন নিয়ে এই পরীক্ষা-নিরীক্ষা?

এ সিদ্ধান্তের একটা ব্যাখ্যা দাঁড় করিয়েছেন ভারতের সাবেক কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান সুনীল গাভাস্কার। তাঁর কাছে মনে হয়েছে, ইনিংসের শুরুতে কিউই পেসার ট্রেন্ট বোল্টকে যে রোহিত শর্মা সামলাতে পারবেন, সে ভরসা ছিল না ভারতীয় ম্যানেজমেন্টের। তাঁর মতে, ভারতীয় ম্যানেজমেন্ট মনে করেছে, বোল্টের বিষ মেশানো ইনসুইং সামলানোর সাধ্য নেই রোহিতের!

আজ তাক-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে রোহিতের ব্যাটিং পজিশন নিয়ে চিন্তিত থাকতে দেখা গেছে গাভাস্কারকে, ‘ঈশান কিষান এমন একজন খেলোয়াড়, যে সফলও হতে পারে, ব্যর্থও হতে পারে। কোনো নিশ্চয়তা নেই। ওর মতো ব্যাটসম্যান যদি চার বা পাঁচ নম্বরে নামে, সেটাই ভালো। তখন সে ম্যাচের পরিস্থিতি অনুযায়ী ব্যাট চালাতে পারে। কিন্তু এখন যেটা হয়েছে, রোহিত শর্মাকে বলা হয়েছে যে দেখো, তুমি ইনিংসের শুরুতে ট্রেন্ট বোল্টের বাঁহাতি ইনসুইঙ্গারগুলো সামলাতে পারবে, আমরা এমন বিশ্বাস করি না। যে ব্যাটসম্যান এত বছর ধরে ওপেন করছে, তাকে এমন কিছু বলা হলে অবশ্যই তার মধ্যে নিজের সামর্থ্য নিয়ে প্রশ্ন জাগবে। ঈশান কিষান যদি ৭০-এর মতো রান করত, তাহলে এই সিদ্ধান্তের প্রশংসা হতো। এমনটা যেহেতু হয়নি, তাই এই সিদ্ধান্ত নিয়ে এখন সমালোচনা হবেই।’

ভারতের ব্যাটিং অর্ডারে এমন পরিবর্তনের কোনো অর্থ খুঁজে পাননি গাভাস্কার, ‘আমি জানি না হারের ভয় থেকে ওরা এমন কিছু করেছে কি না। ব্যাটিং অর্ডারের কোনো পরিবর্তনই কাজে লাগেনি। যে রোহিত ওপেনার হিসেবে এত ভালো, তাকে নামানো হলো তিনে। তিনে ভূরি ভূরি রান করা কোহলিকে নামানো হলো চারে। ওপেনিং করতে পাঠিয়ে দেওয়া হলো ঈশান কিষানকে।’

মজার ব্যাপার হচ্ছে, যে বোল্টের ‘ভয়ে’ রোহিতকে তিনে নামানো হয়েছে বলে গাভাস্কার মনে করছেন, দুজনই আইপিএলে একই ফ্র্যাঞ্চাইজিতে খেলেন, মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের হয়ে। রোহিতের জায়গায় যে কিষানকে নামানো হয়েছে, তিনিও মুম্বাইয়েরই খেলোয়াড়। গাভাস্কারের কথা সত্যি মানলে ভারতীয় সমর্থকদের এখন মনে হতেই পারে, রোহিত আর বোল্ট যদি আলাদা আলাদা ফ্র্যাঞ্চাইজিতে খেলতেন, তাহলে অন্তত বোল্টকে প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে আরও নিয়মিত পেতেন রোহিত!